গাইবান্ধা ডিবি পুলিশের হানা, ২০০ পিস ইয়াবা ও গাঁজাসহ মাদক সম্রাট আমিনুল ইসলাম সহ গ্রেপ্তার ৩

গাইবান্ধা প্রতিনিধি :-

গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ থানাধীন তিস্তা নদী ও ব্রহ্মপুত্র নদীর মোহনার অপর পাশে কাশেম বাজার চড় মাদারী পাড়া। দুই নদীর সংযোগ মোহনা চর অঞ্চলটি গাইবান্ধা জেলা হতে বিচ্ছিন্ন ও দুর্গম হওয়ায় মাদক ব্যবসায়ীগন মাদকের ড্রপ পয়েন্ট হিসাবে ব্যবহার করে আসছে। কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী বর্ডার এলাকা দিয়ে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ী গোপনে ও সহজে নদীপথে মাদক আনা-নেওয়ার রুট হিসেবে উক্ত এলাকায় অবস্থান করে। স্থানটি মাদক ব্যবসায়ীদের নিরাপদ জনক হওয়ায় মাদক মজুদ ও বিভিন্ন স্থানে নদীপথে সরবরাহে উক্ত চরপাড়া মাদকের “ড্রোপ পয়েন্ট” হিসেবে গড়ে ওঠে। বিভিন্ন স্থানে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে গাইবান্ধা জেলার সুযোগ্য ও দক্ষ পুলিশ সুপার জনাব মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম মহোদয় মাদকদ্রব্য রুটের দুর্গম চর অঞ্চলের মাদকের “ড্রপ পয়েন্টের” সন্ধান পেলে জেলার গোয়েন্দা শাখার ইন্সপেক্টর মোঃ রায়হান আলীর নেতৃত্বে একটি চৌকস ডিবি টিম চরমাদারীপুর কাশেম বাজার এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করে। ইং২৪-১০-২০২০ তাং দিবাগত রাতে মাদক সম্রাট (১) আমিনুল ইসলাম(৩৫) পিং মৃত কবেজ আলী, তার সঙ্গে (২) মোঃ আনোয়ার হোসেন(৩৬) পিং আলহাজ্ব ইলিয়াস হোসেন (৩) মিজানুর রহমান (৩৫) পিং শহিদুর ইসলাম মাদকসহ তার বাড়িতে অবস্থান করে। রাত ০১.৪৫ মিনিটের সময় নদীপথে ডিবি পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদকসহ আসামিরা পলায়নকালে মাদক সম্রাট আমিনুলকে ডিবি পুলিশ আটক করে। তার ঘর তল্লাশি করে বালিশের নিচে ২( দুই ) জিপার প্যাকেটে ২০০ (দুই শত) ইয়াবা এবং খাটের নিচে গাজার প্যাকেট স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে উদ্ধার করে। তার অন্যান্য সঙ্গীও পার্টনার গণ তাদের সঙ্গে থাকা মাদকসহ পালিয়ে যায়। মাদক সম্রাট আমিনুল ইসলাম আটক হওয়া সংবাদ পেয়ে এলাকার লোকজন ছুটে আসে এবং তার এহেন কাজে লোকজন ধিক্কার জানান সহ চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে। ধৃত আমিনুল জানায়, রৌমারী বর্ডার এলাকার আনিসুর রহমান নামে এক মাদক ব্যবসায়ীএর মাধ্যমে ভারতের গাজা ও ইয়াবা নদীপথে তার বাড়ীতে নিয়ে আসে। সেখান থেকে গাইবান্ধা জেলা সহ বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করে। ঘটনাস্থলে স্থানীয় উপস্থিত লোকজনকে ডিবি পুলিশ মাদকের বিরুদ্ধে মোটিভেশন করলে তারা মাদকের বিরুদ্ধে সচেতন ও প্রতিবাদী হয়ে ওঠে। আগামীতে মাদক ও অপরাধ দমনে পুলিশ প্রশাসনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানে আগ্রহী হয়ে ওঠে। ডিবি পুলিশের এই অভিযানে শান্তিপ্রিয় সাধারন জনগন, সচেতন মহল গাইবান্ধা জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মহোদয় কে ধন্যবাদ জানান।
অপর দিকে স্হানীয় জনগনের তথ্যের ভিত্তিতে গাইবান্ধা সদর থানার রামকৃষ্ণপুর এলাকায় গঞ্জিকা সম্রাট(২) মোঃ লিটন মিয়া @ মোড়ল(৪৮) পিং মোজাম্মেল হক তার বসত বাড়িতে ঘরের মধ্যে অপর মাদক ব্যবসায়ী (৩) মোঃ আব্দুল হামিদ খাটিয়া(৫৫) পিং মৃত হাকিমুদ্দিন সাং পলাশ পাড়া থানা ও জেলা গাইবান্ধাসহ মাদক কেনাবেচা করার সময় গোয়েন্দা শাখার অপর একটি টিম এস আই আব্দুল মোতালেব সঙ্গীয় ফোর্সসহ ইং ২৫-১০-২০২০ তারিখ ০৯.০০ মিনিটের সময় ৫০০ গ্রাম গাজা, পাল্লা ও বাটখারা সহ আটক করে। মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী জনতার ডাকে দ্রুত ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদকসহ আসামি গ্রেপ্তার, এলাকার জনগণ সন্তোষ ও স্বস্তি প্রকাশ করে। গাইবান্ধা জেলায় সর্বত্রই মাদকের বিরুদ্ধে সুযোগ্য পুলিশ সুপার মহোদয়ের কঠোর অবস্থান ও দ্রুতপদক্ষেপ নেয়ায় উপস্থিত স্থানীয় সাধারণ মানুষ পুলিশ সুপার মহোদয় কে ধন্যবাদ জানান এবং মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান যেন অব্যাহত থাকে এই আশা ব্যক্ত করেন।
উল্লেখিত ঘটনার বিষয়ে সুন্দরগঞ্জ থানার মামলা নং২০ তারিখ ২৫.১০.২০২০ ধারা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ৩৬(১) সরণির ১০(ক)/১৯(ক)/৪১ ও গাইবান্ধা সদর থানার মামলা নং ৪৪ তাং ২৫-১০-২০২০ ইং ধারা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ৩৬(১) সরণির ১৯(ক)/৪১ দায়ের করা হয়েছে।

What do you think?

Written by Chaya Manob

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

শালমারার ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত

গোবিন্দগঞ্জে স্কুল ছাত্রী অপহরন ঘটনার মামলার বাদীকে ভয়-ভীতি প্রদর্শনের প্রতিবাদে সংবাদ সন্মেলন অনুষ্ঠিত